প্রসূতির লাশ টেবিলে রেখে পালালেন চিকিৎসক

  • Uploaded 11 months ago in the category News & Politics

    ঢাকার সাভারের একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে অস্ত্রোপচারের সময় নয়নতারা নামের এক প্রসূতির মৃত্যু হয়। পরে তাঁর লাশ অস্ত্রোপচার টেবিলে রেখে চিকিৎসক পালিয়ে যান। পরে বেরিয়

    ...

    ঢাকার সাভারের একটি স্বাস্থ্যকেন্দ্রে অস্ত্রোপচারের সময় নয়নতারা নামের এক প্রসূতির মৃত্যু হয়। পরে তাঁর লাশ অস্ত্রোপচার টেবিলে রেখে চিকিৎসক পালিয়ে যান। পরে বেরিয়ে আসে ওই চিকিৎসক প্রসূতির রক্তনালি কেটে ফেলেছিলেন। এ ছাড়া তিনি ভুয়া পরিচয়ে কেন্দ্রটিতে অস্ত্রোপচার করে আসছিলেন। nগতকাল সোমবার পৌরসভার গেন্ডা এলাকার মনামী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। ক্ষুব্ধ জনতা কেন্দ্রটিতে ভাঙচুর করে। প্রসূতি নয়নতারা (২০) রংপুরের পীরগঞ্জ উপজেলার নয়ানদী ফকিরা গ্রামের আতোয়ার রহমানের স্ত্রী। তিনি সাভার পৌর এলাকার গেন্ডা মহল্লায় ভাড়াবাড়িতে থেকে ঢাকা সোয়েটার নামে স্থানীয় একটি পোশাক কারখানায় চাকরি করতেন। তাঁর স্বামীও একই কারখানার শ্রমিক। nপুলিশ ও প্রসূতির স্বজনদের সূত্রে জানা গেছে, প্রসবব্যথা ওঠার পর এক দালাল নয়নতারাকে গতকাল বেলা দেড়টার দিকে মনামী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যান। বেলা সাড়ে তিনটার দিকে নয়নতারার অস্ত্রোপচার করা হয়। এর ঘণ্টা খানেক পর চিকিৎসক অস্ত্রোপচারকক্ষ থেকে বের হয়ে গা ঢাকা দেন। এর পরপরই স্বজনেরা ওই কক্ষে গিয়ে অস্ত্রোপচার টেবিলে নয়নতারার লাশ দেখতে পান। তবে নবজাতক সুস্থ আছে।nনয়নতারার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে তাঁর স্বামী ও সহকর্মীরা ঘটনাস্থলে ছুটে যান। এ সময় নার্স, আয়াসহ স্বাস্থ্যকেন্দ্রটির মালিকপক্ষের সবাই কৌশলে পালিয়ে যান। উত্তেজিত জনতা কেন্দ্রের ফার্মেসিতে ভাঙচুর করে। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে। লাশ থানায় নিয়ে যায়। nনয়নতারার স্বামী আতোয়ার রহমান প্রথম আলোকে বলেন, চিকিৎসকের অবহেলা ও ভুল চিকিৎসায় তাঁর স্ত্রীর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় তিনি আইনের আশ্রয় নেবেন। nনয়নতারার অস্ত্রোপচার করেন শামসুন্নাহার নামের একজন চিকিৎসক। অস্ত্রোপচারের আগে তাঁকে অচেতন করেন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের অবেদনবিদ নাজমুল হুদা। nজানতে চাইলে প্রসূতি নয়নতারাকে অচেতন করার কথা স্বীকার করে নাজমুল হুদা বলেন, চিকিৎসক শামসুন্নাহার অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে প্রসূতি নয়নতারার সন্তান প্রসব করান। এর বেশি আর কিছু বলতে তিনি অপারগতা প্রকাশ করেন।nস্বাস্থ্যকেন্দ্রটির মালিক দন্ত চিকিৎসক জাহাঙ্গীর বলে জানা গেছে। সরেজমিনে সাইনবোর্ডে দেখা গেছে, চিকিৎসক শামসুন্নাহার সাভার এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সহকারী রেজিস্ট্রার (গাইনি)। nতবে এনাম মেডিকেলের পরিচালক আনোয়ারুল কাদির বলেন, শামসুন্নাহার নামে তাঁদের কোনো চিকিৎসক বা সহকারী রেজিস্ট্রার নেই। nতাঁর ব্যক্তিগত মুঠোফোন বন্ধ থাকায় এ বিষয়ে শামসুন্নাহারের সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি।nউপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আমজাদুল হক বলেন, ঘটনা তদন্তে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের গাইনি বিশেষজ্ঞ জয়নব আক্তারকে প্রধান করে চার সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে, অস্ত্রোপচারের সময় শামসুন্নাহার প্রসূতি নয়নতারার একটি রক্তনালি কেটে ফেলেন। এ কারণেই অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে। অধিক তদন্ত করে এ ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরও বলেন, শামসুন্নাহার একটি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে পাস করার পর ভুয়া পরিচয়ে ওই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করছিলেন। nসাভার মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জাকারিয়া হোসেন বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য প্রসূতির লাশ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হবে।

  • প্রসূতির লাশ টেবিলে রেখে পালালেন চিকিৎসক
show more show less
    Comments (0)